বুধবার, ১৭ আগস্ট, ২০১১

অনুরাধার জন্যই...

রাজীব B.Tech Final Year  ছাত্রবর্তমানে ফাইনাল প্রজেক্ট নিয়ে বেজায় ব্যস্ত। বাড়িতে দুপুরবেলায় ল্যাপটপ-এ বসে সেই কাজেই লেগেছিল সে। ওর সাথে ওর প্রজেক্ট-পার্টনার যে আছে সে ওরই অভিন্নহৃদয় বন্ধু অনুরাধা। অনুরাধার সাথে বন্ধুত্ব শুরু হয়েছিল চার বছর আগেযখন ওরা প্রথম কলেজে আসে। ওদের ক্লাস এ অনেকেই ওদের কে প্রথমে কাপল ভেবেছিল কারন দুজনে প্রায় সবসময় একসাথে থাকতোকিন্তু ওরা সব বন্ধুদের সামনে বলে দিয়েছে ওরা ভেরি গুড ফ্রেন্ড ছাড়া আর কিছু না। বন্ধুরাও মেনে নিয়েছে। রাজীব কে দেখতে ভালইস্বাস্থ্য ভাল,৬ফিট এর মতো উঁচু। এক সময় সাঁতার কাটত

নিয়ম করে। কলেজ এ উঠে ওসবে আর সময় দিতে পারেনা। অনুরাধা কালো নাতবে খুব ফরসা বলা যায় না,কিছুটা শ্যামলা। সাড়ে ৫ফিট এর মতো উঁচু। শরীরটা মাঝারি মাপের ভরাট।  তবে সবচেয়ে সুন্দর ওর কাজলকালো চোখদুটি। এরকম চোখ খুব কমই দেখা যায়। তাছাড়া একটু ছটফটে যেটা রাজীবের খুব ভাল লাগে। রাজীব জানে যে অনুরাধার স্কুল জীবনে একটি ছেলের সাথে রিলেশন ছিল যে কিনা অনুরাধাকে ডাম্প করে চলে গেছে। তারপর এতগুলো বছরে অনুরাধা অন্য কোন ছেলের দিকে তাকায়ও নি। শুধু কলেজে এসে রাজীবকেই জীবনের ভাল বন্ধু বলে মেনেছে। রাজীবেরও কোন গার্লফ্রেন্ড নেই। অনুরাধাকেই ও সবচেয়ে ভাল বন্ধু বলে মানে। অনুরাধার সাথেই ওর যত ইয়ারকিঝগড়া-মারামারি এবং বন্ধুত্ব।
সকালে অনুরাধা ফোন করেছিলকাল ফাইনাল প্রজেক্ট এর ডেমনস্ট্রেশন ক্লাস এ ও ছিল নাস্যার কিছু জরুরি নোট দিয়েছিলেন। রাজীব সেগুলো টুকে রেখেছিল। অনুরাধা বলেছিল দুপুরে এসে নিয়ে যাবে ওগুলো। দুপুর প্রায় ৩টে বাজে,এমন সময় কলিংবেল। নিশ্চই অনুরাধা এসেছেরাজীব নিচে দৌড়ালো। ওর পরনে একটা রাউন্ড-নেক টি-শার্ট ও থ্রি-কোয়ার্টার। অনুরাধা প্রায়ই ওদের বাড়ি আসে,সেও ওদের বাড়ি যায়। দুই বাড়ির সবাই জানে ওদের বন্ধুত্ব। রাজীব এর মা-বাবা দুজনেই সার্ভিস এ। দুপুরে এবাড়িতে একমাত্র সে ও তার ঠাকুমা ছাড়া কেউ নেই। ঠাকুমাও দুপুরে খেয়ে নিয়ে নিচে ঘুমাচ্ছেন। দরজাটা খুললো রাজীব। হ্যাঁঅনুরাধাই। পরনে একটা নেভিব্লু জিনস আর অফ-হোয়াইট টপ। কাঁধে ব্যাগ। আয়ভিতরে আয়-বলল রাজীব। অনুরাধা ঢোকার পর দরজা বন্ধ করে রাজীব বলল-উপরে যা আমার রুম এ। আমি রান্নাঘর থেকে জলের জগ নিয়ে যাচ্ছি। রাজীব উপরে এসে দেখল অনুরাধা ফ্যান চালিয়ে দিয়ে ওর খাটে বসে রিলাক্স করছে। খোলা চুল পিঠের উপর ফেলা। কিছুক্ষন গল্পগুজব চলল দুজনের। দুজনই নিজেদের কথা পরস্পরকে না বলে থাকতে পারে না। প্রজেক্ট নিয়ে আলোচনা হল কিছু। রাজীব লক্ষ্য করল হঠাকরে অনুরাধা কে সে অন্য চোখে দেখছে। আজ অবধি রাজীব কখনো অনুরাধার শরীর নিয়ে ভাবেনি। কিন্তু বুঝতে পারল না কেন আজ হঠা করে মনে হল অনুরাধাকে একটা চুমু খায় বা অনুরাধাকে আদর করে। অনুরাধার পাশে বসে রাজীবের মনের মধ্যে কি একটা পরিবর্তন হলযাকে এতদিন ভাল অভিন্নহৃদয় বন্ধু বলে দেখে এসেছেগত দুদিন তাকে না দেখে তার উপর কেমন একটা আচমকা টান অনুভব করতে লাগলোঅনুরাধা তার সামনে বসে উচ্ছ্বল নদীর মত কলকল করে কথা বলে চলেছেকিন্তু রাজীব এর কানে কিছু ঢুকছে নাও তাকিয়ে ছিল অনুরাধার কাজলকালো চোখের দিকে। হঠা অনুরাধা তার হাঁটুতে একটা নাড়া দিল-কিরেহাঁ করে বসে আছিস কেননোটগুলো দেটুকে নেই। রাজীবের সম্বিফিরে এল। ও উঠে টেবিল থেকে নোটগুলি নিয়ে খাটে এসে বসলো। অনুরাধাকে দেখিয়ে দিল কোথা থেকে লিখতে হবে। নিজে অনুরাধার পাশে বসে থাকল।
     অনুরাধা একমনে বসে লিখছেচুলগুলি কানের পাশ দিয়ে গালের উপর এসে পরেছেসেদিকে তাকিয়ে রাজীব নিজেকে ধরে রাখতে পারল নাএকটু আগে মনে যে চিন্তা এসেছিল হয়ত তাকে অনুসরন করেই অনুরাধার কানের লতিতে একটা আলতো চুমু খেলচমকে অনুরাধা তাকাল রাজীবের দিকেসে হয়ত এটা আশা করেনি তার প্রিয় বন্ধুর থেকেকিন্তু হঠা করে এই রকম ব্যবহার পেয়ে অনুরাধার মুখটা একটু লাল হয়ে উঠলোরাজীব সরাসরি তাকাল অনুরাধার চোখের দিকে|অনুরাধাও তাকিয়ে রইল রাজীব এর দিকে। তার কাজলকালো চোখে বিষ্ময়। রাজীব এর সমস্ত control নস্ট হয়ে গেল অনুরাধার কালো চোখদুটির দিকে তাকিয়ে। রাজীব এর ঠোঁট স্পর্শ করল অনুরাধার ঠোঁট। অনুরাধা বাধা দেবার হাল্কা চেষ্টা করেও ছেড়ে দিল। ওর শরীরটা উপষি ছিল এতদিন। স্কুল ছাড়ার পর এতদিন তার কোন পুরুষসঙ্গ হয়নি। রাজীব এর ঠোঁটের স্পর্শ পেয়ে অনুরাধার মধ্যেও যেন কিছু পরিবর্তন হয়ে গেল। সে কাছে পেতে চাইল রাজীবকে। রাজীব এর ঠোঁট চুসতে লাগলো পাগলের মতো। অনুরাধা সাড়া দিতে রাজীবও সাড়া দিল। দুজন দুজনের ঠোঁটে লিপ-লক হয়ে গেল। অনুরাধার জিভ রাজীবের মুখের ভিতর। রাজীব চুসতে লাগলো। অনুরাধাও অনুসরন করল তাকে। অনেকক্ষণ পরে আলাদা হল রাজীব। দরজা খোলা আছে। ঠাকুমা এসে পরলে মুশকিল হবে। উঠে গিয়ে দরজা লক করেদিল রাজীব। ফিরে এল অনুরাধার কাছে। অনুরাধাও অপেক্ষা করছিল রাজীবকে আরও কাছে পেতে। টেনে নিল সে রাজীবকে নিজের কাছে। আবার লিপ-লক। রাজীবের মনে হল অনুরাধা যেন ওর জিভ আর ঠোঁট খেয়ে ফেলবে। ঠোঁট ছেড়ে রাজীব নামল অনুরাধার গলায়। চুমু খেতে লাগলো সেখানে গভীরভাবেতার সাথে ছোট ছোট লাভ-বাইট। অনুরাধার শরীর খুশিতে ভরে উঠল। সে গলা দিয়ে নানারকম আদুরে আওয়াজ করতে লাগলো। রাজীব এর ডানহাত নেমে এল অনুরাধার বামদিকের স্তনে। সেই স্পর্শে কেঁপে উঠল অনুরাধা। অনেক দিন পরে তার শরীরে যেন জোয়ার এসেছে। আজ পর্যন্ত রাজীব যতগুলো চটিবই বা সেক্স ম্যানুয়াল পড়েছে  এবং সেক্স সম্পর্কে যা যা জেনেছে তার আজ প্র্যাকটিক্যালের সময় এসেছে। অনুরাধার রেশম থলির মত স্তনে হাত দিয়ে সে পিষে যাচ্ছে আর গলায় চুমু খেয়ে যাচ্ছে। রাজীব তার বামহাতটিকেও কাজে লাগাল এবং অনুরাধা কে ধীরে ধীরে বিছানায় শুইয়ে দিল। পরনের টপ নিচ থেকে গুটিয়ে গলার কাছে নিয়ে এল। তারফলে টপের নিচ থেকে বেরিয়ে এল দুটি ব্রা পরা রেশম থলি। রাজীব একটু ইতস্থত করছিল, কিন্তু অনামিকা নিজেই খুলে দিল সেই রেশম থলির শেষ আবরন। রাজীব তাকাল অনুরাধার চোখের দিকে। ওর কাজলকালো চোখ বন্ধ,কিন্তু মুখে খুশির ছাপ। পুরো ব্যপারটা সে অনুভব করছে তার শরীর ও মন দিয়ে। রাজীব তাকিয়ে দেখছিল অনুরাধার ভরন্ত বুক, হঠা অনুরাধার একটা হাত উঠে রাজীব এর ঘাড়ে পড়লরাজীব কে টেনে নিল নিজের বুকের উপর। রাজীব এর মুখ ঢাকা পড়ল অনুরাধার দুই স্তনের মাঝের উপত্যকায়। উত্তেজনার শিখরে পৌছানোর আগে ওর কানে এল অনুরাধার অর্ধোচ্চারিত শীকার। রাজীব অনুরাধার বামদিকের নিপল মুখে নিয়ে চুসতে লাগলোজিভ বোলাতে লাগলো হাল্কা করেতার সাথে বামহাত দিয়ে অনুরাধার ডানদিকের রেশম থলিকে চটকাতে লাগলো। একটু পরে মুখ তুলে অনুরাধার ক্লিভেজে জিভ দিয়ে চাটতে লাগলো হাল্কা করে। তার সাথে দুটি হাতকেই কাজে লাগালো অনুরাধার দুই স্তনকে আদর করার জন্য। এরপর সে চলে এল অনুরাধার ডান স্তনে। নিপল এ হাল্কা ভাবে জিভ ছুঁইয়ে তার চারপাশ দিয়ে জিভ বোলাতে লাগলো। কখনো পুরো স্তনটিকেই মুখে পুরে সাক করতে লাগলো। তার সাথে হাত চলতে লাগলো অনুরাধার বাম স্তনে। অনেকদিন পরে এই লাভমেকিং অনুরাধাকে অস্থির করে তুললো। ও রাজীবকে উলটে দিয়ে নিজে রাজীব এর উপরে উঠে শুয়ে পড়ল। রাজীব কে একই ভাবে আদর করতে লাগলো যেভাবে রাজীব ওকে করেছিলো। খুলে দিল রাজীবের টি-শার্ট। রাজীব জড়িয়ে ধরল ওকে নিজের দুইহাতের মধ্যে। অনুরাধা রাজীবের গলায় ছোট ছোট লাভ-বাইট দিয়ে ওকে পাগল করে দিল। রাজীব এর বুকে চুমু খেতে লাগলোওর নিপলগুলিতে দাঁত দিয়ে হাল্কা কামড় দিলো। আদরে আদরে ভরিয়ে দিতে লাগলো রাজীব এর শরীর। ধীরে ধীরে সে চলে এল রাজীব এর শরী্রের নিচের অংশে। টান দিয়ে নামিয়ে দিল রাজীবের থ্রি-কোয়ার্টার। রাজীব এর উত্তেজিত পুরুষাঙ্গ থেকে কিছুটা লুব্রিকেন্ট বেরিয়ে এসেছিলসেটা মাথায় লেগেছিল। জিভ দিয়ে স্পর্শ করল অনুরাধা সেটা। রাজীব আর থাকতে না পেরে হাত দিয়ে অনুরাধার মাথাটা চেপে ধরল। অনুরাধা রাজীব এর উত্তেজিত পুরুষাঙ্গ ঢুকিয়ে নিল নিজের মুখের ভিতরচুসতে লাগলো সেটা। রাজীব মুখ দিয়ে নানা রকম আওয়াজ করছিলসেটা শুনে আরো বেশি উত্তেজিত হয়ে যাচ্ছিল অনুরাধা। আরো বেশি করে চুসছিল রাজীবের পুরুষাঙ্গ। একটা সময় রাজীবের মনে হল সে আর ধরে রাখতে পারবে না নিজেকেবিষ্ফোরণ হতে পারে। তাই সে নিজেকে সরিয়ে নিল অনুরাধার মুখ থেকে। সোজা হয়ে উঠে বসলো খাটের উপর। অনুরাধা চোখ মেলে তাকাল রাজীব এর দিকে। চোখে খুশি,ঠোঁটের কোনে হাল্কা হাসির ঈশারা। রাজীব অনুরাধার ঠোঁটে চুমু খেল। শুইয়ে দিল ওকে। আদর করতে করতে আস্তে আস্তে খুলে নিল অনুরাধার জিনস ও তার নিচে থাকা প্যান্টি। অবাক চোখে সে দেখছিল অনুরাধার নারীসম্পদএর আগে এরকম বাস্তব অভিজ্ঞতা হয়নি। চোখ বন্ধ করে অনুরাধা অনুভব করতে লাগলো রাজীবকে। রাজীব অনুরাধার নাভিতে চুমু খেলনাভির চারপাশে জিভ দিয়ে বোলাতে লাগলো,এক-দুটো হাল্কা কামড়ও দিল। তার সাথে দুই হাত দিয়ে আদর করতে লাগলো দুই স্তনে। নাভির একটু নিচে অনুরাধার হাল্কা লোমে ভরা পিউবিক এরিয়া, সেখানেও এক-দুটো চুমু খেল। এরপর সে এগিয়ে গেল অনুরাধার যোনিতে। একটা অদ্ভুত নেশাধরা গন্ধ আসছিলো ওখান থেকেএকটা চুমু খেল সে ওখানে। তারপর থাইতে,হাঁটুতেপায়েপায়ের পাতায়। পায়ের পাতায় চুমু খাবার সাথে সাথেই অনুরাধা শীকার করে উঠল জোরে। রাজীব শুনেছিলপায়ের পাতায় চুমু খেলে অনেক মেয়ে নাকি অর্গাজমের কাছাকাছি চলে যায়। নিজের চোখে দেখল সে এটা। অনুরাধা বিছানার চাদর খামচে ধরেছিল। রাজীব তার দুইহাতের আঙুল দিয়ে অনুরাধার দুইহাতের আঙুল ছুঁতে চাইলোকিন্তু অনুরাধা যেন তার আঙুলগুলো দিয়ে রাজীব এর আঙুল পেঁচিয়ে ধরল। রাজীব আবার চুমু খেতে সুরু করল তার পায়ের পাতায়,হাঁটুতে ও ধীরে ধীরে উপরদিকে উঠতে লাগলোঅনুরাধার থাইতে চুমু খেতে লাগলো ও জিভ দিয়ে হাল্কা করে বুলিয়ে দিতে লাগলো। চুমু খেল কোমরেউরুসন্ধিতে,পেটেনাভিতে। আবারও সে চলে গেল থাইতে। সেখান থেকে হাঁটুতে আদর করার আগে হঠা যোনিতে একটা হাল্কা চুমু দিলবুঝতে পারল যে অনুরাধার ক্লিটটা শক্ত হয়ে উঠেছে এবং তার ঠোঁটের স্পর্শ সরাসরি সেখানে পড়েছে। এতে অনুরাধা যেন পাগল হয়ে গেল। রাজীব তার হাত দিয়ে অনুরাধার স্তনে আদর করা সুরু করেছিল আঙুল দিয়ে তার নিপল দুটি কে ফিল করার চেষ্টা করছিলকিন্তু অনুরাধা বারবার চেষ্টা করতে লাগলো যাতে রাজীব তার যোনিমুখে হাত দিয়ে স্পর্শ করে। কিন্তু রাজীব এত তারাতাড়ি ওখানে যেতে রাজি না। সে চাইছিল যাতে অনুরাধা আরও বেশি উত্তেজিত হয়। তাই সে তার কাজ চালিয়ে যেতে লাগলো,অনুরাধার যোনিতে সরাসরি আদর না করে তার পাশ দিয়ে থাই এর উপরেপায়ে,পেটে আদর করতে লাগলোঅনুরাধার মুখ থেকে নানাধরনের আদুরে শব্দ বেরোচ্ছিল এবং বেশ জোরেই। কিছুক্ষন এইভাবে ফোরপ্লে করার পর রাজীব এর মনে হল এবার সরাসরি অ্যাকশনে নামা উচিতকারন অনুরাধাকে দেখে বোঝা যাচ্ছিল যে ও আর বেশিক্ষন ধরে রাখতে পারবে না। রাজীব কয়েক সেকেন্ড সময় নিল নিজেকে প্রস্তুত করার। এরপর এগিয়ে এল শুয়ে থাকা অভিন্নহৃদয় বন্ধুর উরুসন্ধির দিকে। বন্ধুর দুই পা ফাঁক করে নিলঅনুরাধাও ছড়িয়ে দিল দুদিকে। দুই আঙুলে ভ্যাজাইনার দুইপাশ ফাঁক করে নিজের পুরুষাঙ্গকে তার মুখে বসাল রাজীব। পিচ্ছিল যোনিপথের মুখে পুরুষাঙ্গটি বসে যেতে রাজীব হাল্কা চাপ দিল। একটু ঢুকলো। আবার একটু চাপআরও কিছুটা ঢুকলো। রাজীব অনুরাধার দিকে তাকিয়ে দেখল ও চোখ বন্ধ করে দাঁত দিয়ে নিচের ঠোঁট চেপে ধরে আছেদুহাত দিয়ে বিছানার চাদর মুঠি করে ধরা। রাজীব চোখ বন্ধ করে মনে জো্র এনে একটা চাপ দিল জোরে। এবার রাজীব এর পুরুষদন্ডটি ঢুকে গেল অনুরাধার মধ্যে। অনুরাধার মুখ দিয়ে হোঁক করে একটা আওয়াজ বেরিয়ে এল। কিছুক্ষন এইভাবে থেকে রাজীব পথচলা শুরু করল। একটা রিদম-এ চলে এল রাজীবের মুভমেন্ট। রাজীব ও অনুরাধা দুজনের মুখ থেকেই নানারকম শব্দ ও শব্দাংশ বের হচ্ছিল। অনুরাধার মনে ফিরে আসছিল তার আগের বয়ফ্রেন্ড এর সাথে সেক্স করার কিছু স্মৃতিআজকে রাজীব যেভাবে ওকে আদর করে জাগিয়ে দিয়েছে তা ওর আগের বয়ফ্রেন্ড কোনোদিনও করতে পারেনি। সে সরাসরিই অনুরাধাতে উপগত হত। এতে অনুরাধার কষ্ট হতকিন্তু সে বুঝত না। রাজীব ও অনুরাধা দুজনেই চেষ্টা করছিল কিভাবে নিজের পার্টনারকে ম্যাক্সিমাম প্লেজার দেওয়া যায়। অনুরাধা মাঝে মাঝে রাজীব এর কানের লতি কামড়ে ধরছিলনিচ থেকে চাপ দিয়ে সাহায্য করছিল যাতে রাজীব আর গভীরে যেতে পারে। রাজীব ওর স্তনে জিভ বুলিয়ে নিপল-এ দুই নরম ঠোঁট দিয়ে চাপ দিচ্ছিল। হারিয়ে যাচ্ছিল অনুরাধা ভালোলাগায়। তার এত ভাল বন্ধু যে প্রথমবারেই এত ভাল প্লেজার দেবে তা শুরুতে বুঝতে পারেনি। রাজীব কে জড়িয়ে ধরল সেপা দুটি দিয়ে রাজীব এর কোমর জড়িয়ে ধরল শক্ত করে। রাজীবের শরীর অনুরাধার শরীরের উপর তালেতালে উঠছিল আর নামছিল। অনুরাধার হাত-পা এর বন্ধনে রাজীব এর শরীর যেন মিশে গেল অনুরাধার সাথে। কানের কাছে অনুরাধার শীকার রাজীব এর শরীরে যেন আগুন জ্বালিয়ে দিল। আরও দ্রুত হল রাজীবআরও গভীরে যেতে চাইল। রাজীবের এই দ্রুতলয় অনুরাধা নিজের শরীর-মন দিয়ে উপভোগ করছিল। নিজেও নিচ থেকে সাহায্য করছিল রাজীবকে। মাঝে মাঝে তার ক্লিটে হাত দিয়ে স্পর্শ করে আরও জাগিয়ে তুলছিল রাজীব ওকে। সেসময় গুঙিয়ে উঠছিল অনুরাধা। প্রায় মিনিট ১০ পরে নিজেকে আর ধরে রাখতে পারল না অনুরাধা। তলপেটের নিচে কেমন একটা অনুভুতি হচ্ছিলসেটা তীব্র হল এবারমনে হল শরীরটা ছিঁড়ে যাবে। ঠিক সেইমুহুর্তে রাজীব বের করে নিল নিজেকে। অনুরাধার যোনিতে জিভ লাগিয়ে চাটতে লাগলো। ওর ক্লিটে জিভ দিয়ে বোলাতে লাগলো হাল্কা করেক্লিটের চারপাশে বোলাল। আঙুল দিয়ে অনুরাধাকে স্টিমুলেট করছিল রাজীব। অনুরাধার গলা থেকে একটা অদ্ভুত গোঙানি বেরোচ্ছিল। হঠা চেঁচিয়ে উঠল অনুরাধা। শরীরটা বেঁকে গেল। দুহাতে খামচে ধরল রাজীবের চুল আর হাত। ওর যোনির উপরের অংশ থেকে ছিটকে বেরিয়ে এল কিছুটা তরল,ছড়িয়ে পরল রাজীবের মুখে। তার প্রত্যাঘাতে রাজীবও আর থাকতে পারল না। নিজের পুরুষাঙ্গকে মন্থন করতে লাগলো। কিছুক্ষনের মধ্যেই সাদাথকথকে তরল ছড়িয়ে পরল অনুরাধার পেটের উপর। অর্গাজমের ক্লান্তিতে বিছানায় এলিয়ে পরল অনুরাধা। দুহাত দিয়ে রাজীব কে টেনে নিল নিজের বুকের উপর। অনুরাধার গলায় মুখ গুঁজে রাজীব ওর শরীর থেকে ঘামে ভেজা এক পাগলকরা বুনো গন্ধ টেনে নিতে লাগলো। একটু পরে রাজীবের গালে একটা চুমু খেয়ে অনুরাধা বলল- আমিতো পুরোপুরিই স্যাটিসফাইড তুই প্রথমদিনেই যদি এত ভাল পারফরম্যান্স দেখাস তো পরের বার তো সেন্চুরি করবি। রাজীব- আসলে জিনিসটা হঠা করে হয়ে গেল। আর তোকে স্যাটিসফাই করতে যা যা করেছি তা সবই আমার বই পড়া থিওরী। যদি এইবার প্র্যাকটিক্যালে কোন ভুল হয়ে থাকে তাহলে পরেরবার সেটা ঠিক করে নেব। অনুরাধা মুচকি হেসে বলল শয়তান একটাতারপর রাজীব এর কপালে একটা চুমু খেয়ে বলল- লাভ ইউ রাজীবতুই সত্যিই আমার বেস্টফ্রেন্ড। রাজীব মুখে কিছু বললো না, প্যাশনেটলি চুমু খেল অনুরাধাকেঅনেকক্ষন ধরে। অনুরাধার নরম বুকের উপর মুখ রাখল সে। শুনতে পেল নিচের দেওয়াল ঘড়িতে ঢং ঢং করে বিকাল ৪টে বাজল।

সংগ্রহ:বাংলা চটি2011

৩টি মন্তব্য: